নির্যাতনের অভিযোগে কর্মকর্তার কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে শিক্ষার্থীরা

নির্যাতনের অভিযোগে কর্মকর্তার কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে শিক্ষার্থীরা

ছাত্রীদের শারীরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতনের অভিযোগে অভিযুক্ত প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের দুই কর্মকর্তার কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে ঝিনাইদহ সরকারি ভেটেরিনারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। স্থায়ী শিক্ষকের অভাবে শাহজাদপুর উপজেলা ভেটেরিনারি সার্জন ডাঃ শহিদুল ইসলাম খোকন এবং চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমাস্তাপুর উপজেলার, উপজেলা প্রানিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ হারুনুর রশিদ উক্ত কলেজে প্রেষণে আসেন। তাদের বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই শিক্ষার্থীদের মানসিকভাবে নির্যাতন ও ছাত্রীদের চেম্বারে ডেকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠে। শিক্ষার্থীরা তিন দফা উক্ত কর্মকর্তাদের অপসারণের অভিযোগ করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দ্বিতীয় বর্ষের এক ছাত্রী কান্না বিজরিত কন্ঠে প্রতিবেদককে জানান -সে বিবাহিত হওয়ার তাকে অনেক কটু কথা বলা হয় এবং তাদের কাছে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। এ বিষয়ে কলেজের উপাধ্যক্ষকে দুদিন খোঁজ করা হলেও তাকে অফিসে পাওয়া যায়নি। উক্ত শিক্ষক দ্বয়ের বিরুদ্ধে জেলা প্রানিসম্পদ কর্মকর্তাকে প্রধান করে দুই সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। কমিটিকে দশ কর্মদিবসের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। উক্ত শিক্ষক দুজন শিক্ষার্থীদের পিতৃমাতৃহীণ, পরিচয়হীন এবং নানা অশ্লীল ভাষায় গালাগালি করে বলে জানায় ছাত্রছাত্রীরা।

এদিকে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদের দাবিতে আজ ২৩ দিনের মত ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। বৃষ্টি উপেক্ষা করে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশে বক্তারা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সুযোগ সুবিধা না পাওয়ায় তারা মানসম্মত শিক্ষা হতে বঞ্চিত হচ্ছেন। প্রানিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে গুটিকয়েক শিক্ষক প্রেষণে এনে একজন শিক্ষককে দিয়েই চালানো হচ্ছে একাধিক বিভাগ। প্রয়োজনীয় অবকাঠামো এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সুপারিশ থাকা সত্ত্বেও কেন যবিপ্রবির অনুষদে পরিণত করা হচ্ছেনা কর্তৃপক্ষের কাছে তা জানতে চায় শিক্ষার্থীরা। সমাবেশ শেষে অভিযুক্ত দুজন শিক্ষকের কুশপুত্তলিকা দাহ করে শিক্ষার্থীরা।

NO COMMENTS

Leave a Reply