বহুমূখী সমস্যায় জর্জরিত পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

বহুমূখী সমস্যায় জর্জরিত পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

0 145

মোঃ মিজানুর রহমান (পাবিপ্রবি):

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এর হলের ডাইনিং এর নিম্ন মানের খাবার, প্রকট লোডসেডিং এ বিপর্যস্থ শিক্ষার্থীরা, নখ দন্তহীন বিশ্ববিদ্যালয় এর মেডিকেল ব্যবস্থা এবং ভূগোল পরিবেশ ও নগর পরিকল্পনা বিভাগের” নাম পরিবর্তন ও উক্ত বিভাগটি ভেঙে দুটি বিভাগ করায় বিপাকে প্রায় ১৫০ জন্য শিক্ষার্থী। এ সকল সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আজ সকাল ১১টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত  বিশ্ববিদ্যালয় এর সাধারণ শিক্ষার্র্থীরা ঢাকা পাবনা মহা সড়ক এ মানব বন্ধন ও সড়ক অবোরোধ কর্মসূচী পালন করে।

আন্দলোনরত শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায় ২০১১-২০১২ শিক্ষাবর্ষে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এ ভূগোল পরিবেশ ও নগর পরিকল্পনা বিভাগ নামে একটি বিভাগ চালু হয় যার বর্তমান ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত এই নামেই শিক্ষার্থী ভর্তি করে আসছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকে উক্ত বিভাগটি ভেঙে ভূগোল ও পরিবেশ” এবং নগর ও পরিকল্পনা নামে” নতুন দুটি বিভাগ চালু করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কিন্তু বিগত চারটি ব্যাচের শিক্ষার্থীদের নতুন কোন বিভাগে পরিবর্তণ না করে পূর্ববর্তী নামেই শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। অথচ বর্তমানে ভূগোল পরিবেশ ও নগর পরিকল্পনা বিভাগ” নামে কোন বিভাগের অস্থিত্বই নেই বিশ্ববিদ্যালয়ে। এদিকে উক্ত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব রাহীদুল ইসলাম রাহী বলেন “ইউজিসির অনুমোদন ক্রমে ইঞ্জিনিয়ারিং ফ্যাকাল্টির অধীনে “আরবান ও রিজিওনাল প্লানিং” নামে নতুন একটি বিভাগ চালু করা হচ্ছে যেখানে ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষ হতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে এবং বর্তমান শিক্ষার্থীরা যে বিভাগের অধীনে ভর্তি হয়েছে সেই বিভাগ থেকেই সনদ পত্র পাবেন।”

তাই উক্ত বিভাগের বর্তমান শিক্ষার্থীদের দাবী তাদের যেন নতুন দুটি বিভাগের কোন একটি বিভাগে মাইগ্রেশন করে দেয় কিন্তু উক্ত বিভাগের প্রধানেরা সেটি করতে অনিচ্ছুক। এমন অবস্থায় অনিশ্চয়তার মুখে উক্ত বিভাগের প্রায় ১৫০ জন্য শিক্ষার্থীর ভবিস্যত।

এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় এর মেডিকেল বিভাগে নেই কোন চিকিৎসা সরঞ্জামাদি এবং চিকিৎসক এর সংখ্যা মাত্র দুই জন যারাও নিয়মিত থাকেন না। একজন জুনিয়র ডাক্তার মাঝে মাঝে বসলেও অপরজনকে পাওয়াই যায় না। এবং সেই সাথে নেই কোন রকম অষুধের ব্যবস্থা। উক্ত ডাক্তারের চিকিৎসা পত্রে তেমন কোন কাজ হয়না শিক্ষার্থীদের। তিনি বিশেষ একটি কোম্পানির ঔষধ ব্যবস্থা পত্র হিসেবে প্রদান করে থাকেন। এমত অবস্থায় শিক্ষার্থীদের পুনরায় অন্য স্থানে চিকিৎসা নিতে যেতে হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের জন্য একটি হল চালু হলেও সেখানে খাবারের মান খুবই নি¤œমূখী। প্রায়ই খাবারে পোকা মাকর পাওয়া যায়। দিনে ৭-৮ ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকেনা। সন্ধার পর পড়ার সময় হলে প্রায়ই বিদ্যুৎ চলে যায় এবং গভীর রাতে আসে। এতে ব্যহত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা সহ স্বাভাবিক জীবন যাপন। এছাড়াও হলে মোবাইল এর নেওয়ার্ক থাকেনা ঠিক মত। এ ব্যাপারে শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ দিন ধরে অভিযোগ করে আসলেও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তাই এসব দাবী নিয়ে আজ শিক্ষার্থীরা ঢাকা পাবনা মহা সড়কে মানব বন্ধন ও সড়ক অবরোধ কর্মসূচী পালন করে।

NO COMMENTS

Leave a Reply